শোনো…
– হ্যাঁ বলো
– তুমি আমায় সত্যি ভালোবাসো?
– কেন? আবার এই বস্তাপচা প্রশ্ন কেন? ১৮ বছর তো হয়েই গেল একসাথে আছি। এখনও সন্দেহ হয়?
– সে তো উপায় নেই বলে রয়েছো। মুসলিম হলে কবেই তালাক দিয়ে দিতে!
– কেন? কেন? সব মুসলিমকে নিয়ে এরকম misconception কেন? আর তাছাড়া তোমায় ছাড়ার হলে এমনি ছেড়ে দিতাম। Divorce বলে একটা ব্যাপার হয়। জানো বোধ হয়!
– ইয়ার্কি না মেরে যেটা জিজ্ঞেস করলাম সেটা বল তো?
– হ্যাঁ ভালোবাসি। উফফ! যাও। স্নান করেছো… এবার ভগবানের কাছে দাবি দাওয়া পেশ করবে যাও।
– হুম।
– কী হল? বললাম তো ভালোবাসি এখনও মুখটা ওরকম করার কী আছে?
– মিথ্যে বললে!
– আরে এ তো আজব!
– মিথ্যে কেন বলতে যাবো তোমায়।
– আমি জানিনা কেন? তবে মিথ্যে বলেছো এটা জানি।
– কী করে জানলে শুনি।
– থাক জানতে হবে না তোমায় আর। আমি পূজো করি গিয়ে।
– আরে আরে!! দাঁড়াও… এরকম করছো কেন? কী হয়েছে বলো না।
– চেঁচিও না। বাবাই পড়ছে পাশের ঘরে! ওর পরীক্ষা সামনে।
– আচ্ছা। ঠিক আছে চেঁচাচ্ছি না। বল এবার।
– আমরা কতদিন… মানে… কিছু করিনি সেটা বল তো!
– এই জন্যে তোমার মনে হল আমি মিথ্যে বলছি????
– না ঠিক এইজন্যে না… মানে…
– আরে খুব Tired থাকি তো! অফিসের চাপ টা বেড়েছে জানোই তো! তাই আর energy থাকে না বুঝলে! একটু চাপ কমুক না। সব হবে আবার।
– থাক থাক। আর অজুহাত দিতে হবে না। বাথরুমে গিয়ে করার বেলায় energy র অভাব নেই। খালি আমার বেলাতেই যত অসুবিধে তোমার। করতে হবে না থাক।
– কি? বাথরুমে?? কবে করলাম?
– এই তো আজকেই। স্নান করতে গিয়ে পা পিছলে পড়ছিলাম। জল টা তো দিতে পারো At Least.
– মানে?? আমি? আজ?? কি সব বলছো গো? শ্যাম্পু পড়েছিল। দেখো হয়তো। খেয়াল করোনি তুমি।
– ১৮ বছর তোমার সাথে ঘর করছি আমি শ্যাম্পুর সাথে ও জিনিসের পার্থক্য বুঝতে পারবো না?? কি ভাবো কী তুমি আমায়?
– [গলা চড়িয়ে] আরে আমি সত্যি বলছি। আমি আজ ওসব করিনি।

ভেতরের ঘর থেকে বাবাইঃ তোমরা একটু আস্তে কথা বলবে? আমি পড়ছি এখন।

– এই… বাবাই এর বয়স কত হল যেন?
– ১৬। নিজের ছেলের বয়স…। অ্যাই… এক মিনিট… বাবাই কি তাহলে???????
– যাক ছেলে আমার পুরুষ হচ্ছে!!
– ইস! ছেলে এসব করছে আর তুমি আনন্দ পাচ্ছো? দাঁড়াও ওকে আমি…
– না না। একদম না। কিছু বলবে না ওকে। It’s perfectly normal. সবাই করে এই বয়স থেকে…
– ইস! ছি ছি। জল টা দিতে পারে At least.
– ধুর! জল আমিও দিতাম না। সব সময় অত খেয়াল থাকে না। বুঝলে?
– তুমি কি অসভ্য গো!
– জানি তো! তবে এটা তো Trailer ছিল। আজ ছুটির দিন। এবার বাকি picture হবে।
– অ্যাই! অ্যাই! না। ছোঁবে না বাসী জামা-কাপড় পরে আমাকে। এই স্নান করেছি। পূজো করতে হবে!
– আচ্ছা কথা দিচ্ছি জামা-কাপড় পরে ছোঁবো না। তাহলে চলবে তো?
– দৌড়োবে!  😉

বিবাহ বিভ্রাট ৩

Post navigation


One thought on “বিবাহ বিভ্রাট ৩

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: